Skip to content Skip to footer

কত দিনে কী রোগে মৃত্যু, জানাবে চোখ!

চোখের মণিতে কি শুধুই হৃদয়ের ‘গোপন কথা’টি লুকিয়ে থাকে?

চোখের ভাষায় এবার হয়তো পড়ে নেওয়া যাবে মৃত্যুর সময়ও !

হ্যাঁ, এবার চোখ দেখে বলে দেয়া যাবে কারো আয়ুকাল, এবং জানা যাবে কারো মৃতু কিভাবে হবে – শুধুমাত্র রেটিনা পরীক্ষা করেই। সম্প্রতি একটি নজরকাড়া গবেষণা পত্রিকাসূত্রক তথ্যটি পাওয়া যায়। গবেষণাপত্রটি প্রকাশিত হয়েছে আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান গবেষণা পত্রিকা – ‘ব্রিটিশ জার্নাল অব অপথ্যালমোলজি’–তে। গবেষণা জানিয়েছে, এই চিকিৎসা পদ্ধতির কোনো হ্যাপা নেই তেমন। রোগীকে ভোগ করতে হবে না যন্ত্রণাও।  দু’জন সমবয়সির শরীরের দেহকোষগুলোর ক্ষয় বয়সের সঙ্গে সঙ্গে একই হারে হয় না। কারও ক্ষেত্রে তা হয় দ্রুত হারে। কারও ক্ষেত্রে তা কম। এখানেই বছরের হিসাবে মানুষের বয়সের সঙ্গে তার দেহকোষের আয়ুর (‘বায়োলজিক্যাল এজ’) তফাতটা হয়ে যায়!গবেষণা জানাল, মানব দেহকোষের সেই ক্ষয়ের ছবিটা নিখুঁতভাবে অনেক আগেভাগেই ধরা পড়ে রেটিনায়। রেটিনার ভাষা পড়েই আগেভাগে বলে দেওয়া যেতে পারে কার আয়ু আর কত দিন। মৃত্যু হতে পারে কী ধরনের রোগে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (‘আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স’) পদ্ধতির অ্যালগরিদমের মাধ্যমে!

বিশেষজ্ঞদের একাংশের কথায়, এই পদ্ধতি আগামী দিনে চিকিৎসকদের হাতে বড় হাতিয়ার তুলে দিতে পারে। কারণ এ পূর্বাভাসের জন্য এখন যে পদ্ধতিগুলো (যেমন, নিউরোইমেজিং, ডিএনএ মেথিলেশন ক্লক, ট্রান্সক্রিপটোম এজিং ক্লক) চালু রয়েছে সেগুলো ততটা নিখুঁত নয়। অনেক বেশি ব্যয়সাপেক্ষ, যন্ত্রণাদায়কও। কাজটা যদি রেটিনা পরীক্ষা করেই করা যায় তা হলে খরচ, হ্যাপা দুই-ই কমবে, তা যন্ত্রণাদায়কও হবে না। ব্রিটেনে প্রায় ৫০ হাজার মধ্যবয়সির ওপর পরীক্ষা চালিয়ে গবেষকরা দেখেছেন, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা পদ্ধতির মাধ্যমে যদি বোঝা যায় কারও চোখের রেটিনার বয়স তার নিজের বয়সের চেয়ে অন্তত এক বছর বেশি, তা হলে বলে দেওয়া যাবে আগামী ১১ বছরের মধ্যে যে কোনো কারণে তার মৃত্যুর আশঙ্কা দুই শতাংশ বেড়ে গেছে। সেই পূর্বাভাস যতটা সঠিক হবে পুরুষের ক্ষেত্রে, ততটাই নিখুঁত হবে নারীদের ক্ষেত্রেও। গবেষকরা এ-ও দেখেছেন, রেটিনার বয়স কারও বয়সের চেয়ে অন্তত এক বছর বেশি হলে ক্যানসার বা কোনো রকমের হৃদরোগ ছাড়া অন্য কোনো রোগে আগামী ১১ বছরে তার মৃত্যুর আশঙ্কা বেড়ে যাবে কম করে তিন শতাংশ। গবেষণাপত্রটি জানিয়েছে, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার অ্যালগরিদম অনুযায়ী এভাবে প্রায় ৫০ হাজার মধ্যবয়সির রেটিনা পরীক্ষা করে গবেষকরা যে পূর্বাভাস করেছিলেন, তা মিলে গেছে এক দশকের মধ্যে প্রায় দু’হাজার জনের মৃত্যুর মাধ্যমে। মৃতদের রেটিনার বয়স তাদের বয়সের চেয়ে এক বছর বেশি ছিল। পর্যবেক্ষণের ভিত্তিতেই চালানো হয়েছে এ গবেষণা। রেটিনা দেখে কেন মৃত্যুর পূর্বাভাস দেওয়া সম্ভব হচ্ছে তার কারণ এখনও জানতে পারেননি গবেষকরা। তবে গবেষণার ফলাফল অন্তত এইটুকু জানিয়েছে, দেহের বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যে ক্ষয়ক্ষতিগুলো হয় দেহকোষের তাতে সবচেয়ে বেশি সংবেদনশীল রেটিনাই। রেটিনার কোষগুলোতেই সেই ক্ষয়ক্ষতির ছাপ পড়ে সবচেয়ে বেশি। সবচেয়ে আগে। চোখের ভাষাতেই প্রথম ধরা পড়ে আমাদের বুড়িয়ে যাওয়ার দাগ!রেটিনার কলাগুলোতে থাকে স্নায়ুকোষ, থাকে রক্তজালিকাও। গবেষকদের ধারণা, রেটিনার কোষ, কলাগুলোই সবচেয়ে আগে জানাতে পারে রক্তজালিকা আর মস্তিষ্কের খবরাখবর। তাদের হালহকিকৎ। এর আগের কয়েকটি গবেষণা দেখিয়েছিল, রেটিনা জরিপ করে নানা ধরনের হৃদরোগ, কিডনির অসুখ, বুড়িয়ে যাওয়ার কিছু লক্ষণ আঁচ করা যেতে পারে। এই গবেষণায় দেখা যায়, রেটিনা খুঁটিয়ে দেখে, দেহের বয়সের সঙ্গে রেটিনার বয়সের ফারাক মেপে-বুঝে যে কোনো রোগেই মৃত্যুর আশঙ্কা এক দশকের মধ্যে কতটা তার পূর্বাভাস দেওয়াও সম্ভব হতে পারে। গবেষণাপত্রে গবেষকরা লিখেছেন, দেখা গেল, রেটিনা নানা ধরনের স্নায়ুরোগ আর হৃদরোগের আঁচ আগেভাগে বোঝার জানলা। এটা এর আগে এতটা নিখুঁত ভাবে দেখা যায়নি। নতুন নতুন ওষুধ, শল্য চিকিৎসা ও নতুন চিকিৎসাপদ্ধতির জন্য হৃদরোগে মৃত্যুর হার আগের চেয়ে কিছুটা কমেছে ঠিকই, কিন্তু এই গবেষণা জানাল, কে ১০ বছরের মধ্যে হৃদরোগে আক্রান্ত হতে চলেছেন তা চোখের রেটিনা পরীক্ষা করে বলে দেওয়া যেতে পারে এক দশক আগেই।

Sign Up to Our Newsletter

Be the first to know the latest updates

Whoops, you're not connected to Mailchimp. You need to enter a valid Mailchimp API key.

This Pop-up Is Included in the Theme
Best Choice for Creatives
Purchase Now